ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৪ ডিসেম্বর ২০২৩
  1. 1
  2. avi feb
  3. Belugabahis bahis sitesi feb
  4. blackjack-deluxe
  5. bonan feb
  6. casinomhub giris
  7. goo feb
  8. last-news
  9. mars feb
  10. Marsbahisgiris feb
  11. New Post
  12. News
  13. onwin feb
  14. polskie-kasyna
  15. আইন-আদালত

জাপানে চার মন্ত্রীর পদত্যাগ

কে এম তারেক অপু
ডিসেম্বর ১৪, ২০২৩ ১:২৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

দলীয় দুর্নীতিকে কেন্দ্র করে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা আস্থা সংকটে জর্জরিত থাকার সময়েই পদত্যাগের এ ঘটনা ঘটল।

জাপানের ক্ষমতাসীন দলের সবচেয়ে শক্তিশালী উপদলের রাজনৈতিক তহবিল সংগ্রহের এক কেলেঙ্কারির মুখে পদত্যাগ করেছেন মন্ত্রিসভার চার মন্ত্রী। দলীয় দুর্নীতিকে কেন্দ্র করে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা আস্থা সংকটে জর্জরিত থাকার সময়েই পদত্যাগের এ ঘটনা ঘটল।

কেলেঙ্কারির ঘটনা তদন্তে কৌঁসুলিরা দলীয় কার্যালয়গুলোয় তল্লাশি চালানো এবং ক্ষমতাসীন দলের আইনপ্রণেতাদের জেরা করার উদ্যোগ নিচ্ছেন- এমন খবরের মধ্যে চার মন্ত্রী পদত্যাগ করলেন।

জাপানের প্রধান মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিরোকাজু মাতসুনো তার পদত্যাগের খবর নিশ্চিত করেছেন। তিনি ছাড়াও অর্থ ও শিল্পমন্ত্রী ইয়াসুতোশি নিশিমুরা, আন্তর্জাতিক বিষয়ক মন্ত্রী জুনজি সুজুকি এবং কৃষিমন্ত্রী ইচিরো মিয়াশিতাও পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন।

এই মন্ত্রীরা ১০০ সদস্যের শক্তিশালী আবে উপদলের সদস্য। এই উপদলের নেতৃত্ব একসময় দিতেন হত্যাকাণ্ডের শিকার সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদার ক্ষমতাসীন লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টিতে (এলডিপি) এই আবে উপদলের এমপি’র সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি।

চার মন্ত্রীর পাশাপাশি এই উপদল থেকে পাঁচজন ঊর্ধ্বতন উপমন্ত্রী ও একজন সংসদীয় উপমন্ত্রীও পদত্যাগ করেছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

অভিযোগ আছে, আবে উপদলের সদস্যরা গত পাঁচ বছরে তহবিল সংগ্রহের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সংগৃহীত ৫০ কোটিরও বেশি ইয়েনের হিসাব দিতে পারেননি; অর্থাৎ, রাজনৈতিক তহবিল সংক্রান্ত প্রতিবেদনে তারা আয় হিসাবে এই অর্থের উল্লেখ করতে ব্যর্থ হয়েছেন।

কৌঁসুলিরা এ অভিযোগ তদন্ত করে দেখছেন। প্রধানমন্ত্রী কিশিদার উপদলও এতে জড়িত কিনা তাও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানানো হয়েছে গণমাধ্যমের খবরে। পাশাপাশি দুর্নীতির তদন্তও করছেন কৌঁসুলিরা।

জাপানে তহবিল সংগ্রহের জন্য অনুষ্ঠান করা বৈধ। দলের তহবিল সংগ্রহের অনুষ্ঠানের জন্য টিকিট বিক্রির যে কোটা থাকে তা আবে উপদলের সদস্যরা অতিক্রম করেছিলেন। তবে সেটিও কোনও অপরাধ নয়। কিন্তু সংগ্রীহিত অর্থের অঙ্ক সরকারি বিবৃতিতে উল্লেখ না করাটা রাজনৈতিক তহবিল আইনের লঙ্ঘন।

ক্ষমতাসীন দল এলডিপি’র এক আইনপ্রণেতার কার্যালয়ে কাজ করতেন এমন এক কর্মকর্তা বলেছেন, “টিকিট বিক্রির ব্যাপারে আপনি আত্মবিশ্বাসী হলে আপনার যেটুকু টিকিট বিক্রির সীমা বেঁধে দেওয়া আছে, তার চেয়েও বেশি আপনি বিক্রি করতে পারেন। আর সেটা থেকে সংগ্রীহিত অর্থ আপনার আয় হিসাবেই গণ্য হবে… সোজা হিসাব।”

এই অতিরিক্ত রাজস্বেরই রেকর্ড রাখা হয়নি, বরং এ অর্থ চলে গেছে স্লাশ ফান্ডে। এলডিপিতে ইতোপূর্বে কিশিদার নেতৃত্বাধীন একটি উপদলসহ অন্যান্য উপদলগুলোও তহবিল সংগ্রহ থেকে আয়ের অর্থ কম দেখানোর অভিযোগের সম্মুখীন হয়েছে।

আগামী বছর সেপ্টেম্বরে এলডিপি’র নেতৃত্ব নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে। আর ২০২৫ সালে হওয়ার কথা রয়েছে সাধারণ নির্বাচন।

কিন্তু জরিপে দেখা যাচ্ছে ২০১২ সালে জাপানে এলডিপি দল ক্ষমতায় ফেরার পর থেকে এখনই দলটির জনসমর্থন সবচেয়ে নিম্নে অবস্থান করছে। প্রথমবারের মতো এলডিপি’র জনসমর্থন ৩০ শতাংশের নিচে নেমে এসেছে।

তাছাড়া, এলডিপি ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত যারা প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন, তার মধ্যে কিশিদার অবস্থানই সবচেয়ে নাজুক।

 

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।